ইন্দুবালা ভাতের হোটেল – রান্নার মধ্যে লুকিয়ে থাকা ইতিহাসের দলিল

ভাতের হোটেল। শুনলেই চোখে ভেসে ওঠে এক ছবি। সারি সারি করে পাতা বেঞ্চি, কলাপাতা, ব্ল্যাকবোর্ডে হাতে লেখা মেনু, পাতে লেবু-লঙ্কা। দুপুর, রাতে খদ্দেরদের পেটপুরে খাওয়ায় যারা, তাদেরও এক না-বলা গল্প লুকিয়ে থাকে এই চার দেওয়ালে। অপরকে খাইয়ে সুখ যাদের, হেঁশেলেই যাদের দিনযাপন, খাওয়ার সাথে তাদের এক অজানা আত্মীয়তা। দেওয়ালে কান পাতলেই শোনা যায় ইতিহাসের বিস্মৃত অধ্যায়।

খুলনার কলাপোতা গ্রামের ইন্দুবালা। প্রাণবন্ত, বুদ্ধিদীপ্ত মেয়ে। ‘নকশী কাঁথার মাঠ’ পড়ে চোখে জল আসে তার। গ্রামজুড়ে ঘুরে বেড়ায় সে তার প্রিয় বন্ধুর সাথে। তাতেই কাল হয়। ইন্দুর বিয়ে হয়ে যায় কলকাতায়। দোজবরে, মাতাল এক পুরুষের সঙ্গে। তিন সন্তান নিয়ে অকাল বিধবা ইন্দুবালা অথৈ জলে পড়ে। সেই থেকে পথচলা শুরু ইন্দুবালা ভাতের হোটেলের।

খুলনা থেকে ছেনু মিত্তির লেনে উঠে এসেছিল যে বাচ্চা মেয়েটা, কলাপোতার সাথে আত্মিক যোগ খুঁজে পায় রান্নায়। প্রত্যেকটা পদ একরাশ স্মৃতি ফিরিয়ে আনে। কখনও ঠাম্মা, কখনও বাবা, কখনও বা নিজের হারানো সেই বন্ধু – সকলে ফিরে ফিরে আসে, চন্দ্রপুলিতে, চিংড়ি মাছে, বিউলির ডালে, মালপোয়ায়। ভাতের হোটেলে এক টুকরো খুলনা খুঁজে পায় ইন্দুবালা।

শুধুই কি নিজের দেশ হারানোর গল্প ইন্দুবালার? নাকি এই হোটেলের ইতিহাসে জড়িয়ে আছে এক নারীর সমাজের বিরুদ্ধে বিদ্রোহও? মাতাল স্বামী, দজ্জাল শাশুড়ি, আত্মীয়-প্রতিবেশীদের টিপ্পনী – সব সয়েও হোটেলকে আঁকড়ে ধরে লড়ে যান ইন্দুবালা। আপোসহীন। এমনকি নিজের ছেলেমেয়েদের মুখাপেক্ষী হয়েও থাকতে নারাজ তিনি। তার সবটা জুড়ে শুধু ভাতের হোটেল। অভুক্তদের খাইয়েই তিনি আস্বাদ পান স্বাধীনতার। মশলা, আনাজ, শাক-সব্জিতেই খুঁজে পান ফেলে আসা কলাপোতাকে। নিজের প্রিয়জনকে।

ইন্দুবালা ভাতের হোটেল তাই নিছক গল্পের বই না। এর ব্যাপ্তি দেশভাগে, মুক্তিযুদ্ধে, ফেসবুকে, অসম প্রেমে, ট্রাঙ্কবন্দি স্মৃতিতে, ক্ষয়ে যাওয়া ডায়েরির পাতায়, নকশাল আন্দোলনে। এক নারীর জীবনযুদ্ধ হয়ে ওঠে ইতিহাসের দলিল। শেষপাতায় পড়ে থাকে গলায় দলাপাকানো কান্না, ভেজা চোখের পাতা আর মুখে প্রশান্তি।

রেটিং: ৪/৫ স্টার

About Agnivo Niyogi

Typical Aantel, reader, blogger, news addict, opinionated. Digital media enthusiast. Didi fanboi. Joy Bangla!

Posted on July 19, 2020, in Books and tagged , , . Bookmark the permalink. Leave a comment.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: