Blog Archives

Web Series Review – REKKA

Femme Fatale – the phrase that strikes your mind after watching ‘Rabindranath Ekhane Kawkhano Khete Asenni’.

Mushkan Zuveri, the enigmatic, mysterious, esoteric protagonist of the novel by Md Nazimuddin, comes alive on screen. Azmeri Haque Badhon portrays Mushkan with élan, as if the character was penned for her to play. The owner of a restaurant in a quaint town of Sundarpur, she is known for (in)famous for her cooking skills. But she has more cards up her sleeves, than meets the eye. Investigator Nirupam Chanda’s (Nure Chhafa in the original) arrival in this small town ruffles up feathers and sets in motion incidents that disturb the ‘beauty’ of the idyllic suburb.

Whether you’ve read the original novel or not, you’d be hooked to this web-series directed by Srijit Mukherji from the word go. He has not only breathed life into the characters created by Mohd Nazimuddin, but made them his own, by adding the little eccentricities, and smart one-liners. To distil 400-odd pages of written text into nine episodes is no mean feat, but Srijit Da has successfully assimilated the flavour of the original work, with creative licenses of his own, making this a visual treat. Specially the sequence in the flashback, which I do not want to disclose to avoid giving out spoilers, will sicken you to the core – in a good way (such is the brilliance of Srijit Da’s craft).

Talking of visuals, one must acknowledge the brilliant ‘dark’ setting of this series, matching the ‘gothic horror’ theme of the plot. A mysterious lady who lives alone in a mansion, disappearance of male guests at an eatery, graves dug in advance, a pond full of crocodiles, foggy nights and nocturnal truth missions, idiosyncrasies of the police bureaucracy, and an uncomfortable truth at the heart of it all – REKKA makes for a wholesome meal of weekend binge.

Those who make it possible – Azmeri Haque Badhon, Rahul Bose, and Anirban Bhattacharya as Mushkan, Nirupam and Ator Ali respectively, live up to their characters to the T. Sequences where Badhon’s character sings Rabindranath’s songs – as if they were composed for precisely these moments, feel eerily magical, yet horrifying. She has an amicable charm, a fatal attraction in her manner, which makes her so enigmatic and powerful. Badhon carries REKKA on her shoulders with her fluid, natural performance.

Rahul Bose on the other hand is suave, stoic, serious. A departure from the original character in the book, who was more of a ‘gobechara’ officer. The final meeting between Nirupam and Mushkan was no less than David battling Goliath, no prizes for guessing, who took the laurels. Anirban, on the other hand, brings to life Ator Ali – the police informer, with his eccentric shenanigans. Not for a moment does it feel we are watching Anirban act. He embodies Ator Ali to the core.

Although Kharaj Khasnobish doesn’t have much space in REKKA, but in the sequel his character assumes a significant role, so where’s expecting Anjan Dutt to deliver his above-mediocrity level performance, as usual. Anirban Chakraborti, too, delivers as the OC of Sundarpur in his limited capacity in the scheme of things.

The man of the match is obviously Srijit Mukherji. Adapting a literary work is no child’s play, specially since comparisons with the original (damned if you deviate, damned if you don’t) are bound to come up. In REKKA, he has remained true to the text, but made the characters his own baby. More importantly, he has added the essence of Rabindranath, who was missing in the original text (apart from the title).

All I can say after watching REKKA is that it was a Friday well-spent. And I hope to catch the sequel soon. And may be we can actually have Chanchal Chowdhury in the cast (as the influential minister).

My Rating: 3.5/5 Stars

অব্যক্ত – সম্পর্কের জটিলতার অনবদ্য নিবেদন

হাতের উপর হাত রাখা খুব সহজ নয়,
সারা জীবন বইতে পারা সহজ নয়।।

‘অব্যক্ত’ ছবিটির একদম শেষের দিকে একটি দৃশ্যে এই লাইনগুলোর কথা মনে পড়ে গেল। ভালোবাসা কারে কয়, কবিও অনুধাবন করতে পারেননি। আমরা কোন ছাড়। জীবন আমাদের যে পরিস্থিতির সম্মুখীন দাঁড় করিয়ে দেয়, সেখান থেকে হয় আমরা বেড়ি ভেঙে এগিয়ে যেতে পারি, নয়তো নিয়তির সাথে আপস করে মানিয়ে নিতে শিখতে পারি। সিদ্ধান্ত যাই হোক না কেন, এতে কি ভালোবাসার ওপর কোপ পড়ে? হয়তো ভাগ্যনিয়ন্তাই জানেন।

অর্জুন দত্তের ছবি ‘অব্যক্ত’ সম্পর্কের ছবি। ভালোবাসার ছবি। মননের ছবি। মানিয়ে নেওয়ার ছবি। ভালোবাসা কি শুধুই অভ্যাস? একজন মানুষকে আশ্রয়স্থল করে সারা জীবন কাটিয়ে দেওয়ার পর, সে আপনাকে আপন করে নেবে তো? অন্তর্নিহিত রূঢ় বাস্তব জেনেও অজানার ভান করতে করতে ক্লান্ত আপনি যদি একদিন হারিয়ে ফেলেন সংযম – খুলে যায় আপোসের মুখোশ? নিমেষে ভেঙে যাবে কাঁচের প্রাসাদ? এমন সব ভাবনার উদ্রেক করে ‘অব্যক্ত’।

 

 

ছবির চিত্রনাট্য অনবদ্য। দৃশ্যকল্পনা থেকে সংলাপ – অসম্ভব পরিণত। যেভাবে শুরু থেকে শেষ অবধি না বলা সম্পর্কের কথা দৃশ্যায়িত করেছেন পরিচালক তাতে মুন্সিয়ানার ছাপ পাওয়া যায়। প্রতিটি ফ্রেমই যেন একটি পূর্ণ দ্বৈর্ঘ্যের ছবি। অর্পিতা ও অনুভবের রসায়ন শক্ত করে ছবির ভিত। সংলাপ না বলেও তারা যেভাবে একে ওপরের সাথে কমিউনিকেট করেছেন, তা প্রশংসনীয়। আদিল হুসেন ছাপ রেখে যান নিজের স্বল্প পরিসরে। ওনার গলায় শেক্সপীয়ারের সংলাপ আরও জীবন্ত হয়ে ওঠে।

ছবির দৃশ্যগ্রহণ ‘অব্যক্ত’ কে অন্য মাত্রা দেয়। শুরুতে দোলের দৃশ্যই হোক বা মধ্যান্তরের আগে মৃত্যুর দৃশ্য, বিশেষত বৃষ্টির ফ্রেমগুলো মন ছুঁয়ে যায়। ছবিটি আরও পূর্ণতা পায় সঙ্গীতে। আবহে সরোদ শুনতে শুনতে হয়তো আপনি হারিয়ে যাবেন ছবির মধ্যেই। সিনেমা শেষ হয় সত্ত্বেও ঘোর কাটবে না। এছাড়া, রবীন্দ্রনাথের ‘কাঁদালে তুমি মোরে’ গানটির ব্যবহারও আপ্লুত করবে আপনাকে। গানের ছন্দপতন মন বিষিয়ে যাবে আপনারও।

যে সন্তান-সর্বস্ব মা নিজের সবকিছু ত্যাগ করে তার ছেলেকে মানুষ করতে, সে-ই বড় হয়ে মায়ের প্রতি অভিমানী। একরাশ না-বলা কথার পাহাড় দূরত্ব তৈরি করেছে তাদের মাঝে। অতিক্রম করতে মুখোমুখি হতে হবে অতীতের, সত্যের, বাস্তবের। সহজ অঙ্ক, কিন্তু সমাধান বড় জটিল। সম্পর্কের এই গল্পে ঠাসবুনোট অভিনয় ও সঙ্গীত। বাহবা অবশ্যই প্রাপ্য অর্জুন দত্তের। দক্ষ পরিচালনা, গল্প বলার ধরণ তার খুবই পরিণত। সম্পর্কের জটিল সমীকরণ যে সারল্যে তিনি পর্দায় পরিস্ফুট করেছেন তা শিক্ষণীয়।

পরিশেষে, হল থেকে বেরোনোর সময় একরাশ দীর্ঘশ্বাস, কিছুটা মন খারাপের ছোঁয়া, গলায় দলা পাকানো কান্নার সাথে রবি ঠাকুর এবং মন ভালো করা সরোদের বোল আপনার সঙ্গী হবে।

%d bloggers like this: