Author Archives: Agnivo Niyogi

Book Review: Mango People In Banana Republic by Vishak Shakti

Disillusionment with one’s career is a common pattern among millennials these days and Ravi Bhalerao is no exception. He is a business strategy consultant who is among those hundreds and thousands who are unsure about the future.

What sets him apart is that he decides to quit his job, ditch the urban life and shift to his ancestral village in Vidarbha, infamous for drought and farmer suicides. No this is not the plot of ‘Swades’ but a blurb of the book ‘Mango People In Banana Republic’ by Vishak Shakti.

This is also the story of Anand, a former physicist who has set on a spiritual quest through esoteric India. He seeks refuge in the Ashrams of various babas and gurus, Beleaguered by the shenanigans of the various cults, he questions the path to “liberation” that he was treading so far.

On the other hand, Ravi comes across India in her elemental form in Vidarbha. He finds a mission, encounters love and embarks on a path of redemption from his disillusionment.

As the name suggests, ‘Mango People In Banana Republic’ is a light-hearted take on the current situation of the country. As Ravi sets out on a search for personal identity, we are also taken on a ‘discovery of India’ ride by the author. With tongue-in-cheek writing, oodles of wit and humour, and a pacy narrative, the book easily wins hearts.

Being an enthusiast of Indian politics, and social activist of sorts myself, this book was relatable to a huge extent. Hailing from a small town, I have often felt disillusioned with the fast-paced city life, the corporate ‘snakes and ladders’ and also faced moments when I had no clue where my life was headed.

Gandhi Ji had truly said true India resides in the villages. And often I have realised this when I have visited rural Bengal (or even the small mufassil towns). Ravi’s quest for self-identity, juxtaposed against the societal and political ills that ail our great nation, and how he chooses to fight them, touches a chord indeed.

To sum up, ‘Mango People In Banana Republic’ is a delightful read on a hot summer afternoon, with a plateful of mangoes to munch on as you turn the pages. Looking forward to reading more of Vishak Shakti’s works.

My Rating: 3.5/5 stars

P.S. The review copy of the book was provided by Writersmelon.

 

DISCLAIMER: ALL IMAGES USED IN THIS POST HAVE THEIR RESPECTIVE COPYRIGHTS

 

Advertisements

Movie Review: Alinagarer Golokdhadha by Sayantan Ghosal

আলিনগরের গোলকধাঁধা – বাংলা সিনেমার এক পথিকৃৎ

বাংলা সিনেমায় থ্রিলার বা রহস্য রোমাঞ্চের বড্ড অভাব। ফেলুদা-ব্যোমকেশ কিংবা হালের কিরীটি আর শবর গোয়েন্দা সিনেমা ঠিকই কিন্তু এডভেঞ্চার মুভি বাংলায় কমই হয়েছে। গত বছর এই ধারাক্রমটা ভাঙেন সায়ন্তন ঘোষাল, ‘যকের ধন’ ছবিটির মাধ্যমে। স্বভাবতই প্রত্যাশার পারদ ছিল ঊর্ধ্বমুখী, আর পরিচালক মশাই দর্শকের চাহিদার মান রেখেছেন এই ছবিটিতে।

‘আলিনগরের গোলকধাঁধা’ এমন এক সময় তৈরী হল যখন বাংলা সিনেমা তো দূরের কথা, বাংলা সংস্কৃতি, মায় ভাষাটা পর্যন্ত অস্তমিত হওয়ার পথে। আজকের এই ‘বাংলাটা ঠিক আসে না’ যুগে দাঁড়িয়ে পরিচালক মহাশয় একটি কালজয়ী, পথিকৃৎ ছবি উপহার দিলেন আমাদের। বাংলা সাহিত্য, সাহিত্যের ইতিহাস এবং বঙ্গের ইতিহাস এই সিনেমার মজ্জায় মজ্জায়। নিজের শহর, নিজের ভাষা তদোপরি নিজের মাতৃভূমি সম্বন্ধে কত কিছুই না জানলাম এই আড়াই ঘন্টায়। ধন্যি, ঘোষাল বাবু।

একটি প্রাসাদ যেমন দাঁড়িয়ে থাকে ইঁটের ভীতে, তেমনই এই ছবির মূল হোতা অবশ্যই অনির্বাণ ভট্টাচার্য্য। তুখোড় অভিনয়, শ্যেন দৃষ্টি, সাবলীল স্ক্রিন প্রেজেন্সের মাধ্যমে সোহম কে সে জীবন্ত করে তুলেছে। বাংলার ইতিহাসের অগাধ পান্ডিত্য কে হাতিয়ার করে একের পর এক ধাঁধা নিমেষে সমাধান করছে সে। সঙ্গী পার্নো মিত্র সঙ্গত দিয়েছেন পুরো দমে।

বাকি অভিনেতাদের মধ্যে গৌতম হালদারকে মগনলাল মেঘরাজকে অনুকরণ করতে গিয়ে একটু বেশি রগচটা করে ফেলেছেন। এরকম গল্পে ভিলেন যদি নিজেকে কমেডিয়ানে পর্যবসিত করেন, তাহলে তো মুশকিল। পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ও নিপাট অভিনয় করেছেন। এই সিনেমায় অনেকদিন পর মনোজ মিত্র এবং মনু মুখোপাধ্যায়কে বড়পর্দায় দেখলাম। যদিও খুব ছোট রোলে। যত টুকু সময় এঁরা পর্দায় ছিলেন, তাদের এতবছরের অর্জিত অভিজ্ঞতা ও অভিনয় দক্ষতা উজাড় করে দিয়েছেন।

একদিকে যেমন চিত্রনাট্য ছবির হিরো, তেমনি চিত্রগ্রাহক মহাশয়ও প্রশংসার পাত্র বটে। ড্রোনের ব্যবহারে চেনা কলকাতার এক অচেনা রূপ দেখলাম। সাথে উত্তর কলকাতার গলিঘুপচি তো আছেই। শেষের ক্লাইম্যাক্সে মুর্শিদাবাদের দৃশ্যগুলি দেখার থেকেই মন আনচান করছে এখুনি নবাবদের রাজধানী ঢুঁ মেরে আসতে।

আমি কমার্সিয়াল/আর্ট সিনেমা – এই ভাগাভাগিতে বিশ্বাসী নই। আমার কাছে সিনেমা শুধু দু প্রকার – ভাল আর খারাপ। এই সেদিনই আনন্দবাজারে একটা লেখায় পড়লাম ভাল সিনেমা মানে যার রেশ কাটতে চায় না। আলিনগরের গোলকধাঁধা এই পর্যায়েই পড়ে। ঘোষাল বাবুর পরবর্তী ছবির অপেক্ষায় রইলাম।

My Rating: 3.5/5 stars

DISCLAIMER: All Images Used In This Post Have Their Respective Copyrights

%d bloggers like this: